Saturday, 1 November 2014

Yazeed-Lover Dr Zakir Naik’s White Lie In The Name Of Sahih Bukhari By Maulana Muhammad A K Azad

I would like to present the seriousness and gravity of Zakir Naik's infringements on Yazeed issue in the court of wise readers and appeal modestly to their soul and conscience to decide what is haque and what is batil.Brother Zakir tries to justify his stand on Yazeed on the basis of this claim that " There is a hadith in Bukhari those people who will conquer Constantinople they will go heaven and Yazeed (rahi mullah) was the commander." [REF:    Reply by Dr.Zakir Naik on Yazeed Pt.1 13th JULY 2008(ITALY)]

Dear Truth Seeking Readers !Decide yourself: Point No. o1To Be Noted : Brother Zakir's claim that there is a hadith in Bukhari, "those people who will conquer Constantinople they will go heaven and Yazeed was the commander", is a white lie.[ Ref:] I Challenge him on behalf of Ahle Sunnat Wa Zamaat to produce the hadith of Sahih Bukhari where such words are mentiond. If he can produce it, each and every Muslim will accept his stand. But he can't produce such Hadith. The truth is, he has not read the original text of the concerned Hadith of Sahih Bukhari and only uttered the words taught by his Kharizi mentors like a parrot. It's misfortune for Muslim Ummah that Such ignorant, arrogant and ill-informed person is hyped and marketed as "Allamatul Muslimin, saviour of Muslim Ummah etc"!!!


             Concerned Hadith of Sahih Bukhari: Now, I implore Honourable Readers to go through the concerned Hadith of Sahih Bukhari watchfully and attentively to realize the hollowness of Mr. Ahle Sahih Hadith's Hadith-knowledge :

            Narrated Khalid Bin Madan that Umair bin Al-Aswad Al-Anasi told him that he went to Ubada bin As-Samit while he was staying in his house at the sea-shore of Hims with (his wife) Um Haram.Umair said: Um Haram informed us that she heard the Prophet (PBUH) saying, "Paradise is granted to the first batch of my followers who will under take a naval expedition." Um Haram added, "I said, 'O Allah's Apostle! Will I be amongst them?' He replied, 'You are amongst them.' The Prophet (PBUH) then said, 'The first army amongst my followers who will invade Caesar's City will be forgiven their sins.' I asked, 'Will I be one of them, O Allah's Apostle?' He replied in the negative." [REF: SAHIH BUKHARI: Vol 1, Pg No. 409, 410 (Hadith No. 2924)

             Dear Readers! Sahih Bukhari's Hadith is explicit. Rasulullah Sallallahu Alaihi Wa Sallam said, "awwalu jaishin min ummati yaghzoona madinata Qaisara maghfurullahum" i.e.,"The first army amongst my followers who will invade Caesar's City will be forgiven their sins" and Dr. Naik says, "those people who will conquer Constantinople they will go heaven and Yazeed was the commander"!!! Does the name "Constantinpole" exist in Holy Hadith? No, "Madinatu-Qaiser" i.e.,"Caesar's City" exists in the text, not Constantinople. Constantinople is one of the cities of Caesar, not the only city.In any Lughat (Arabic Dictionary) the meaning of the city of Caesar is not only the Constantinople. There used to be many cities. Does Holy Hadith certify all the conquerers of Constantinople will go to heaven? No, Holy Hadith gave glad tiding for the first Muslim army invading Caesar's city.

               Did Yazeed  take part in the First Expedition to Constantinople? :    Now, let us be sure, when did Muslims attack Constantinople for the first time and in which expedition did Eazeed participate.

1.   Constantinople was first attacked by Hadhrat Ameer Mu'awiyah (May Allah SWT be well pleased with him) in 32 Hizri. Hafidh Ibn Kathir (R.A.) writes : "Hadhrat Ameer Mu'awiyah (May Allah SWT be well pleased with him) attacked Rome in A.H. 32 and fought battles after battles till he reached the city of Constantinople." Ref: Bidayah wan Nihayah, Vol 7, Pg No. 179. It is also written in Tarikh Kamil, Vol 3, Pg No. 25..  Yazeed did not participate in this expedition.

2.   The next i.e., second attack Rome was launched in the year 42.(A.H) and Yazeed was not amongst them. It is confirmed in Imam Ibn Al-Athir's Tarikh Al-Kaamil and also in Allama Ibn Khuldun's works as well. Imam Zahabi's Tareekh-Ul-Islam also mentions this. Yazeed did not participate in this expedition.

3.   The next i.e., third attack was made in 43 (A.H) led by Bausar Bin Abi Artha who attacked Rome and went right up to Constantinpole.Yazeed did not participate in this expedition.

4.   The 4th batch of troops went in 44  or 46(A.H). The commander was Abdur Rahman Khalid Bin Waleed, son of the great general in Islam Hazrat Khalid Bin Waleed (R.A.)  Together with Bausar Bin Abi Artha they led the first naval expedition in Islam against Rome. Yazeed did not participate in this expedition.

 5.       The 5th batch of troops to go to Rome was led by Hazrat Abdurahman Al Qaymi Al-Antha who was its commander.
Yazeed did not participate in this expedition.

5.   The 6th batch of troops went in 49 (A.H.) and the commander was again Hazrat Malik Bin Hubairah and Hazrat Fazala Bin Ubair was also the commander and from his hands the city of Ceasar in Rome was conquered and the booty was won.Yazeed did not participate in this expedition.

6.   In 49 A.H. 7th Batch made expedition to Constantinople  and a Sahabi participated in it named Yazeed Bin Shajara Ar-Rahaani who was from Damasccus and not Yazeed Bin Muawiah.Yazeed did not participate in this expedition.

      8.   The 8th batch of troops made expedition to Constantinople in 50 (A.H) which mention's the name of Yazeed Bin Muawiya.


      The crux of the question is in which expedition did Yaazid take part? History provides four opinions in this regard:

1.   Eaazid  participated in the battle of Rome in 49 A.H. and he reached Constantinople.  Bidayah wan Nihayah, Vol 8, Pg. No. 34,narrates: In 49 A.H. Yazid bin Mu'awiyah attacked the kingdom of Rome and reached Constantinople.

2.   Yazid participated in the siege of 50 A.H. Umdatul Qari, Vol 5, Pg No 558, narrates: "Muslims reached Constantinople in this attack and laid siege to it and Yazid was the commander on the behalf of his father."

3.   Yazid participated in the attack of 52 A.H. Imam Badruddin 'Aini, noted Commentator of Sahih Bukhari, preferred this opinion and said that this opinion is to be preferred that Yazid participated in the 52 A.H.attack of Constantinople.Umdatul Qari, Vol 10, Kitab ul Jihad, Pg No. 244.

  4.  Hadhrat Mu'awiyah (R.A.) sent Yazid in 55A.H. to attack Constantinople, as given in Al Isabaa fi marifati Sahabah.
   No evidence  proves that Yazid was part in the first siege of Constantinople, because Constantinople had been attacked by Muslim Muzahids  multiple times before it. Claiming that yazid participated under the Hadhrat Abdur Rahman bin Khalid bin Walid (R.A.) and is therefore forgiven  is a fabrication as it is not supported by any of the books of  Hadith, Rijal or History.

    Yazeed was sent to Battlefield as punishment by Muawiya (R.A.) :    Imam Bukhari narrates in his Sahih that," Verily, acts are rewarded according to the intentions." Zakir Naik and Ahle Bidah should disclose to the Muslims  the  reality and true nature of their hero Yazeed's participation in Zihaad to Constantinople. Why do they suppress its backdrop ? why do they  hinder and conceal the truth? Let us be acquainted with the panorama of history on this issue and InshaAllah haque and batil will become  more vivid  and dazzling.

        Yazeed who partcipated in the 7th expedition, de facto, did not participate spontaneously and sincerely. He was sent to the battlefield as the punishment by his father by Holy Sahabi Sayedina  Aamir Muwiya (R.A.) due to his hypocricy and arrogance. All history books record this incident. Ibn Atheer records it in Tarikh Kamil Vol 3, Pg No. 314, under the incidents of 49 and 50 A.H.   Tabari records it inTarikh al-Rusul wa al-Muluk or Tarikh at-Tabari, Published By Cairo: Dar al-Ma'arif. Allama Badruddin Ayini, the noted Commentator of Sahih Bukhari writes:

           "Hadhrat Ameer Mu'awiyah (R.A.) sent a huge army to Rome in 50 A.H. Hadhrat Sufyan bin 'Auf (R.A.) was appointed as the commander of the army and Yazid was ordered to go with the army. Yazid started making excuses, cited illness and did not go. Hadhrat Ameer Mu'awiyah (R.A.) also did not go. In this journey, the Mujahideen faced hunger, thirst and a host of other difficulties. When Yazid was told about this, he recited some couplets, in of other difficulties. When Yazid was told about this, he recited some couplets, in which he said:

"I don't care about the fever, difficulties which the army faces at the

Firqodona (place name), at der murran,

I am sitting on a high mattress and Umme

Kulthoom (Yazid's wife) is with me."

. When Hadhrat Ameer Mu'awiyah came to know of this, he said with an oath, that Yazid should be definitely sent to the
commander Hadhrat Sufyan bin 'Auf (May Allah SWT be well pleased with him), so that he understands the difficulties of the Mujahideen."  Ref : Umdatul Qari Vol 10, Kitab Ul Jihad.  

                   Humble Challenge and Appeal to Zakir Naik : Brother Zakir Naik ! There is not a single hadeeth in Sahih Bukhari where it is said that “those people who will conquer Constantinople they will go heaven and Yazeed was the commander". This is a white lie. If you can roduce such hadeeth where it is mentioned that those people who will conquer Constantinople they will go heaven and Yazeed was the commander", you will be rewarded Rs ten lakh instantly.We challenge you to produce it. We shall accept your standpoint. Otherwise , make tawba for telling lie in the name of sahih Bukhari and desert firqa-parasti.  our  Holy Prophet said, “ The one who attributes lie to me has his place in Zahannam [ Sahih Bukhari – Vol 01 – Page 41 – Hadeeth No 106 ] .

                         Wa maa alaina illal balaag. 

Monday, 29 September 2014

শিক্ষাই শক্তি শিক্ষাই অস্ত্র, শিক্ষাই হোক মূলমন্ত্র : মাওলানা মুহাম্মদ এ কে আজাদ [ সেপ্টেম্বর ২০১৩ নূর পত্রিকায় প্রকাশিত]

wcÖq fvB! wcÖq †evb!

g–mwjg D¤§vni eZ©gvb msKU m¤ú‡K© নিশ্চয়ই  Avcwb IqvwKenvj| GB msK‡Ui e¨vcKZv I MfxiZv m¤ú‡K©I নিশ্চয়ই  Avcwb IqvwKenvj| GK mgq ÔIqvì© AW©viÕ Gi PvjK wQj g–mwjg D¤§vn| wek¦ cwiPvjbvi নিয়ন্ত্রন  wQj g–mwjg‡`i nv‡Z| GLb cwiw¯’wZi GK‡kv Avwk wWwMÖ cwieZ©b N‡U‡Q| GZUvB †h, †Kv_vI ev Aw¯’Z¡ msKU| †Kv_vI ev M…nhz×|

GLb Aek¨-cÖ‡qvRb Nz‡i `uvov‡bvi| cÖ‡qvRb mgwóMZ D‡`¨vM Ges mgwóMZ Kg©cÖ‡Póv| Avmzb! GB Nz‡i `uvov‡bv wgkb Avi¤¢ Kwi wbR wbR cwievi †_‡K| wbR mš—vb mš‘wZ‡K ej–b, Ò‡Zvgv‡`i GKwU Mwe©Z †mvbvjx AZxZ wQj|Ó wbR mš—vb mš‘wZ‡K GI ej–b, Ò‡Zvgv‡`i mvg‡b GKwU ¯^cèfiv †mvbvjx fwel¨Z cÖZxক্ষা  Ki‡Q| mzcè c~i‡Yi Rb¨ cÖ‡qvRb Avjm¨ wemR©b| cÖ‡qvRb AÁZv eR©b| cÖ‡qvRb kvwbZ wek¦vm| cÖ‡qvRb Bk‡K im~j ¯èvZ RvMÖZ †PZbv| cÖ‡qvRb ÁvbvR©b‡K g‚jgš¿ wn‡m‡e Awj½b|

wcÖq fvB! wcÖq †evb! wek¦Rz‡o g–mwjg D¤§vni mvwe©K msK‡Ui g‚j KviY nj, wk¶vq cশ্চা`c`Zv| Bmjvg Ávb AR©b Kiv‡K eva¨Zvg~jK K‡i‡Q| wKš‘ Avgiv Bmjv‡gi wb‡`©k‡K Agvb¨ K‡i wk¶vi Av‡jv †_‡K g–L wdwi‡q wb‡qwQ| wk¶v½‡b Avgv‡`i ckPv`cZv KZUv ˆbivR¨RbK Zv Dcjwä Kivi Rb¨ bx‡Pi GB ¸wUK‡qK Z_¨B chv©ß t

1) 57wU g–mwjg iv‡óÖ †gvU wek¦we`¨vj‡qi msL¨v gvÎ 500wU| Aciw`‡K †Kej Av‡gwiKv‡ZB i‡q‡Q 5758wU wek¦we`¨vjq|
2) g–mwjg ivóÖmg‚‡ni †Kvb wek¦we`¨vjq we‡k¦i †kÖôZg 500wU wek¦we`¨j‡qi Aš—f©z³ bq|
3) g–mwjg‡`i g‡a¨ ¯^v¶iZvi nvi gvÎ Pwj­k kZvsk| c¶vš—‡i LÖxóvb‡`i g‡a¨  ¯^v¶iZvi nvi beŸB kZvsk|
4) †Kvb g–mwjg iv‡óÖ ¯^v¶iZvi nvi 100 kZvsk bq| A_P 15wU LÖxóvb †cÖvwf‡Ý ¯^v¶iZvi nvi GKk kZvsk|
5) g–mwjg †Q‡j‡g‡q‡`i g‡a¨ ¯‹zj WÖc-AvD‡Ui msL¨v 25 kZvs‡kiI †ekx| Ab¨w`‡K LÖxóvb ivóÖ¸wj‡Z GB nvi cÖvq k‚Y¨|

wk¶v½‡b GB wech©‡qi djkÖzwZ wn‡m‡e g–mwjg D¤§vn AvR বিপর্যস্ত mKj A½‡b me©Î fviZe‡l©i Av_©-mvgvwRK †cÖ¶vc‡U g–mwjg‡`i Ae¯’vb GKB iKg cxov`vqK| Avmzb, GK bRi e–wj‡q wbB fviZe‡l© g–mwjg‡`i Av_©-mvgvwRK Ae¯’vi Dci t

1) miKvix PvKzix‡Z g–mwjg‡`i nvi gvÎ 5 kZvsk|
2) BwÛqvb †ijI‡q‡Z g–mwjg‡`i nvi 4.5 kZvsk|
3) wmwfj mvwf©‡m g–mwjg‡`i nvi 3 kZvsk|
4) d‡ib সাwf©‡m g–mwjg‡`i nvi 1.8 kZvsk|
5) cywjk wefv‡M g–mwjg‡`i nvi 4 kZvsk|
6) AvB.G.Gm. wefv‡M g–mwjg‡`i nvi 2.2 kZvsk|
7) AvB.wc.Gm. wefv‡e g–mwjg‡`i nvi 3.6 kZvsk|
8) cywjk wPd‡`i g‡a¨ g–mwjg‡`i nvi 0.1 kZvsk|
9) wePvi wefv‡M g–mwjg‡`i nvi 6.2 kZvsk|

wcÖq fvB! wcÖq †evb! GB wK wQj wk¶v½‡b g–mwjg D¤§vni Ae¯’vb? eZ©gvb GB msKU †_‡K DËi‡Yi Dcvq nj, ÁvbvR©b‡K g‚jgš¿ wn‡m‡e Avwj½b Kiv| †hLv‡b ivm~j–j­vn সাল্লাল্লাহু  AvjvBwn ওয়া mvj­vg e‡j‡Qb, Òwe`¨v AR©b Kiv cÖ‡Z¨K g–mwjg bi-bvixi Rb¨ diR (m~Î evBnvKx), †m‡¶‡Î wKfvবে  Avgv‡`i ¯^v¶iZvi nvi gvÎ Pwj­k kZvsk _vK‡Z cv‡i? যেLv‡b ivm~j–j­vn সাল্লাল্লাহু  AvjvBwn ওয়া mvj­vg wb‡`©k `vb K‡i‡Qb, ÒPxb †`‡k _vK‡jI we`¨v A‡š¦lY KiÓ (m~Î t evBnvKx),  †m‡¶‡Î wKfv‡e Avgv‡`i 25 kZvsk †Q‡j‡g‡q ¯‹zj WÖc-AvDU _vK‡Z cv‡i?

    wcÖq fvB! wcÖq †evb! Avmzb, mzwbwðZ Kwi †h, wbR cwievii †Kvb wkï †hb ¯‹zj QzU bv _v‡K| Avmzb, mzwbwðZ Kwi †h, wb‡Ri Av`‡ii wkïwU †hb Kvj mܨv wbqwgZ co‡Z e‡m Ges b–¨bZg Qq N›Uv covশোনা  K‡i| Avmzb mzwbwðZ Kwi †h, Avgv‡`i mš—vb-mš‘wZ †hb wb‡R‡`i †MŠরবgq AZxZ‡K Rv‡b Ges BwZnvm-HwZn¨ †_‡K cvV MÖnb K‡i ÁvbPP©v, M‡elYv cÖhzw³ I Ab–mÜv‡b wb‡qvwRZ nq| Avmzb, mzwbwðZ Kwi †h, Avgv‡`i mš—vb-mš‘wZ †hb mvnvev‡q †Kivg, Avn‡j evBZ Ges আল্লাহর ওলীগনকে  wb‡R‡`i †ivj g‡Wj wn‡m‡e MÖnb K‡i| Zvn‡jB ˆZix n‡e ivm~j–j­vn সাল্লাল্লাহু  AvjvBwn ওয়া mvj­ Gi Av`k© D¤§Z Ges Avgv‡`i wecyj RbmsL¨v iƒcvš—wiZ n‡e gvbe m¤ú‡`| Avgv‡`i BnKvj euvP‡e| ciKvj euvP‡e| m‡e©vcix, g–mwjg D¤§vn cybivq RMrmfvq †kÖô Avmb cv‡e [ ইন শা আল্লাহ ]                 

Sunday, 21 September 2014

হ্যাঁ আপনাকেই বলছি ! সঠিক মাখরাজ ও তাজবিদের সঙ্গে বিশুদ্ধভাবে আল কুরআন পাঠ করতে পারেন তো ? [ মাসিক নুর- সেপ্টেম্বর সংখা ]

                       লেখক :  মাওলানা মুহাম্মদ এ কে আজাদ

                       সম্মানিত ভাই ও বোন ! মহাগ্রন্থ  আল-কুরআন কি আমাদের জন্য অনণ্য  জীবন বিধান নয় ? মহা প্রজ্ঞাময় এই মহাগ্রন্থ  কি একমাত্র বিশ্ব সংবিধান নয় ? এই  জ্ঞানগর্ভ মহাগ্রন্থ  কি অতীত-ভবিষ্যতের সংবাদ, বর্তমানের জীবন-নির্দেশনা এবং হেদায়েতের মশাল নয় ? আল্লাহ পাক কি বলেন নি যে, “ইহা সেই গ্রন্থ যাতে কোনোই সন্দেহ নেই এবং ইহা ধর্ম-ভীরুদের জন্য পথ- প্রদর্শনকারী “[ সূরা আল-বাকারা - আয়াত নং ১-২] ? তাহলে, আল-কুরআনের প্রতি আমাদের সীমাহীন উদাসীনতা কেন ?

           মুসলিম সমাজের তিনটি ক্যাটেগরি:    সম্মানিত ভাই ও বোন ! ‘বিশুদ্ধভাবে আল কুরআন পাঠ’ এর নিরিখে আমরা মুসলিম সমাজকে তিনটি ক্যাটেগরিতে বিভক্ত করতে পারি :

.   একটি শ্রেনী , উলেমা সমাজ। এ সম্পর্কে এঁরা হলেন সুদক্ষ এবং শিক্ষক-স্থানীয় ।
.    দ্বীতিয় শ্রেনী হল, ঐ সব মানুষ যারা আল কুরআন সম্পর্কে সম্পুর্ণ অজ্ঞ ।
গ   তৃতীয় শ্রেনী হল ঐ সব লোকজন যারা কোনক্রমে আল কুরআন পাঠ করতে পারেন বটে, কিন্তু মাখরাজ, তাজবিদ ও ব্যকরণ সম্পর্কে সম্পুর্ণ অসচেতন ।

         দ্বীতিয় ক্যাটেগরির করুন চিত্র : এখন বাস্তব চিত্র হল, বিশেষতঃ আমাদের পশ্চিমবঙ্গে, প্রতি এক  হাজার মুসলিমের মধ্যে নয় শত পঞ্চাশ জন দ্বীতিয় ক্যাটেগরির অন্তর্ভুক্ত অর্থাৎ যারা আল কুরআন সম্পর্কে সম্পুর্ণ অজ্ঞ  । প্রায় প্রতিটি বাড়ীতেই কুরআন  আছে, কিন্তু আছে আলমারিতে । মনোরম কাপড়ে সুসজ্জিতএই কুরআন আলমারি থেকে বের হয় কখন ? বের হয়,যখন প্রতিবেশীর সঙ্গে বিবাদ বাঁধে এবং কুরআন ষ্পর্শ করে শপথ নেওয়ার প্রয়োজন হয় তখন কিংবা যখন গৃহে কেঊ ইনতেকাল করেন তখন। চল্লিশা উপলক্ষে । মৃত ব্যক্তির ঈসালে  সওয়াব নিঃসন্দেহে ভাল কর্ম কিন্তু, কেবল কেউ ইনতেকাল করলে তবেই আল কূরআন পাঠ করতে হবে, এই সংষ্কার সমাজকে জড়বস্তুতে পরিণত করে দেওয়ার পক্ষে যথেষ্টজনৈক কবি “ কুরআন কি ফারিয়াদ” কবিতায় কি হৃদয়-স্পর্শি মর্ম-বেদনাই না প্রকাশ করেছেন !
                      “ তাকো মে সাজয়া যাতা হুঁ
                         আখোঁ সে লাগায়া যাতা হুঁ
                        তাবিজ বানায়া যাতা হুঁ
                        ধো ধো কে পীলায়ে যাতা হুঁ”

          তৃতীয় ক্যাটেগরির পীড়াদায়ক চিত্র : প্রতি এক  হাজার মুসলিমের মধ্যে প্রায় পঁয়তাল্লিশ জন হচ্ছেন  তৃতীয় ক্যাটেগরির অন্তর্ভুক্ত অর্থাৎ ঐ সব লোকজন যারা কুরআন পাঠ করতে পারলেও  মাখরাজ, তাজবিদ ও ব্যকরণ সম্পর্কে সম্পুর্ণ অসচেতন এঁরা কেবল কোনক্রমে হোঁচট খেতে খেতে কুরআন পাঠ করতে পারেন । কিন্তু এই কুরআন পাঠ ভীষন ত্রুটিযুক্ত ও বিপজ্জনক। বিশুদ্ধভাবে আল কুরআন পাঠের জন্য তাজবিদ ও মাখরাজ সম্পর্কে ঞান অত্যাবশ্যক । আর ও অত্যাবশ্যক ধারাবাহিক অনূশীলন । সর্বোপরী অত্যাবশ্যক, কোনও সুদক্ষ আলেমের তত্তাবধান । কিন্তু পরিতাপের বিষয় , এই ভাই-গন জানেন-ই না যে তাদের কুরআন পাঠ ত্রুটিযুক্ত ও বিপজ্জনক। বরং কেউ কেউ নিজেকে ইসলামের সংস্কারক এবং ধর্ম-প্রচারক বিবেচনা করেন। কেউ কেউ সগর্বে দাবি ও করেন ।  তাঁরা ‘হামযাহ’ ও ‘আঈ-ন’ এর একই উচ্চারনই করেন ।  তাঁরা ‘সী-ন’, ‘শী-ন’, ‘স্ব-দ’ ও ‘ছা’  এর একই উচ্চারনই করেন । তাঁরা ‘তা’ ও ‘ত্ব’ এর একই উচ্চারনই করেন ।  তাঁরা ‘জী-ম’ ও ‘যা-ল’ এর একই উচ্চারনই করেন । তাঁরা ‘ক্বা-ফ’ ও ‘কা-ফ’ এর ও একই উচ্চারনই করেন । মাদ, গূন্নাহ এর কোন বালাই থাকে না। ইচ্ছামত অক্ষর কে দীর্ঘ ও মাদকে ছোট করা হয়। উল্লেখ্য, এই ত্রুটিসমুহকে আমরা দুভাগে ভাগ করতে পারি। প্রথমতঃ, ঐসব ভূল যেগুলির জন্য বর্নের সৌন্দর্‍্য নস্ট হয় কিন্তু অর্থের বিকৃতি ঘটে না এবং নামায ও নস্ট হয় না। যেমন, ‘বিসমিল্লাহ’ এর ‘লাম’ কে বারিক বা চিকন না পড়ে পুর বা মোটা পড়া।  দ্বিতীয়তঃ, ঐসব স্পস্ট ভূল যেগুলির জন্য অর্থের বিকৃতি ঘটে এবং নামায ও নস্ট হতে পারে। ‘ক্বুল’ কে ‘কুল’ পাঠ করলে তো অর্থের বিকৃতি ঘটেই। ‘ক্বুল’ অর্থ বলা এবং ‘কুল’ অর্থ খাওয়া । لآ اله الا الله কে ل اله الا الله পাঠ করলে অর্থ সম্পুর্ন পরিবর্তিত হয়ে যায়। লাম এর উপরে মাদ না পড়ে লাইলাহা পাঠ করলে কলেমার অর্থ হয়ে যাবে, ‘আল্লাহ ছাড়া অবশ্যই উপাস্য আছে’ [ নাউজুবিল্লাহ]।  জনৈক ব্যক্তি নিজের অতীত অজ্ঞতা স্বীকার করে বলেন, 

          জরুরী আত্ম-বিশ্লেষন ও আত্ম-সমীক্ষা : সম্মানিত ভাই ও বোন ! বর্তমান মুসলিম বিশ্বের সব সমস্যার অন্যতম মৌলিক কারন হল আল কুরআন সম্পর্কে আমাদের এই সীমাহীন উদাসীনতা ও নির্মম অজ্ঞতা ।  মহাগ্রন্থ  আল-কুরআন হল আমাদের প্রতি আলাহর পক্ষ থেকে একটি পবিত্র আমানত এবং আমাদের সংকটের  রুদ্ধদ্বার উন্মুক্ত হওয়ার সোনালি সোপান হলো  কুরআন শিক্ষা অথচ আমরা অপ্রয়োজনীয় জিনিসের ন্যয় আল কুরআনকে  অবজ্ঞা অবহেলায় ফেলে রেখে বাহ্যিক পার্থিব উন্নতির লক্ষ্যে খ্রিস্টান, ইহুদি ও হিন্দুদের  অনুসরণ করা শুরু করেছি । আমরা কুরআনকে ত্যাগ করেছি এবং হাতে নিয়েছি গানের বাদ্যযন্ত্র ও বিনোদনের সমূহ উপাদান।

    * *  *    সম্মানিত ভাই ও বোন ! আমরা কেমন তওহিদ-পন্থী যে আমরা চায়ের দোকানে ঘন্টার পর ঘন্টা পরচর্চা করে সময়কে হত্যা করতে পারি, কিন্তু একঘন্টা কোন আলেমের নিকটে বসে কুরআন শিক্ষা করতে পারি না !

    * *  *     আমরা কেমন আশিকে রসুল যে আমরা রকে আর আড্ডায় বসে ঘন্টার পর ঘন্টা এর-ওর গীবত করে সময়কে অতিবাহিত করতে পারি কিন্তু নিজ মসজিদের ইমাম সাহেবের নিকট একঘন্টা বসে কুরআন শিক্ষা করতে পারি না !

    * *  *    আউলিয়ায়ে কেরামের আমরা কেমন অনুরাগী যে আমরা বিশ্বকাপ ফুটবলে নেইমার-মেসী-রোনাল্ডোদের খেলা দেখার জন্য সারা রাত জেগে থাকতে পারি কিন্তু কুরআন শিক্ষার জন্য একটা ঘণ্টা সময় বরাদ্দ করতে পারি না!
    * *  *     আহলে বাইতের আমরা কেমন প্রেমিক যে আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা বোকা-বাক্সের সামনে বসে অ্যানজেলা জুলি – জুলিয়া রবার্টস - শাহরুখ খান – অজয় দেবগণ – ক্যাটারিনা কাইফ – প্রিয়াঙ্কা চোপড়া – দেব- কোয়েল মল্লিক প্রমুখ নর্তক- নর্তকীগন অভিনীত   বলিউড – হলিউড – টলিউডের সিনেমাগুলি উপভোগ করতে পারি কিন্তু কুরআন শিক্ষার জন্য খানিক-ক্ষন মাত্র সময় আমরা ব্যয় করতে পারি না !
     * *  *     সাহাবায়ে কেরামের আমরা কেমন আনুসারী যে, শার্লক হোমস – বোমকেশ বক্সীর অ্যাডভেঞ্চার আর উইলিয়ম শেক্সপিয়র – রবীন্দ্রনাথের রচনাবলী আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে পড়তে পারি কিন্তু কুরআন শিক্ষার জন্য নামমাত্র সময় আমরা বরাদ্দ করতে পারি না!
      * *  *     আমরা কেমন পরকালের যাত্রী যে আমরা পার্থিব উন্নতির জন্য আমাদের আদরের শিশুদেরকে ইংরেজীর টিউশন দিচ্ছি , অংকের টিউশন দিচ্ছি, বাংলার টিউশন দিচ্ছি, লাইফ সায়েন্সের টিউশন দিচ্ছি, ফিজিকাল সায়েন্সের টিউশন দিচ্ছি, কেমিস্ট্রির টিউশন দিচ্ছি, ভূগোলের টিউশন দিচ্ছি, এমনকি ইতিহাসের ও টিউশন দিচ্ছি, কিন্তু পরকালে সাফল্যের পরশমণি কুরআন শিক্ষার জন্য কোন আলেম সাহেবের নিকট টিউশন দেওয়ার কথা বিবেচনা-যোগ্য ও মনে করি না !

             প্রশ্ন হল -  কেন, কেন এত উদাসীনতা ? আল্লাহ পাক কি বলেন নি যে কিতাব অবতীর্ণ হয়েছে পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময় আল্লাহর পক্ষ থেকে।” [সূরা আয-যুমার: আয়াত নং-  ১] ? আল্লাহ পাক কি বলেন নি যে এতদসম্পর্কে যদি তোমাদের কোনো সন্দেহ থাকে যা আমরা আমাদের বান্দার প্রতি অবতীর্ণ করেছি, তাহলে এর মত একটি সূরা রচনা করে নিয়ে এস আর তোমাদের সেসব সাহায্যকারীদেরকে সঙ্গে নাও-এক আল্লাহকে ছাড়া, যদি তোমরা সত্যবাদী হয়ে থাকো।” [সূরা আল-বাকারা: আয়াত নং- ২৩] ?  আল্লাহ পাক কি বলেন নি যে , “ এটি একটি গ্রন্থ, যা আমি আপনার প্রতি নাযিল করেছি, যাতে আপনি মানুষকে অন্ধকার থেকে আলোর দিকে বের করে আনেন , পরাক্রান্ত, প্রশংসার যোগ্য রবের নির্দেশে,  তাঁরই পথের দিকে।” [সূরা ইবরাহীম: আয়াত নং-  ১] ?  আল্লাহ পাক কি বলেন নি যে  অবশ্যই আল্লাহ মুমিনদের উপর অনুগ্রহ করেছেন, যখন তিনি তাদের মধ্য থেকে তাদের প্রতি একজন রাসূল পাঠিয়েছেন, িনি  তাদের কাছে তাঁর আয়াতসমূহ তিলাওয়াত করে এবং তাদেরকে পরিশুদ্ধ করে আর তাদেরকে কিতাব ও হিকমাত শিক্ষা দেযদিও তারা ইতঃপূর্বে স্পষ্ট ভ্রান্তিতে ছিল। [সূরা আলে-ইমরান: আয়াত নং- ১৬৪]

       সম্মানিত ভাই ও বোন ! আসুন নিজে সঠিক মাখরাজ ও তাজবিদের সঙ্গে বিশুদ্ধভাবে আল কুরআন পাঠ করতে শিখি এবং নিজের সোনামণি-দেরকেও শিখাই। কি অব্যক্ত যন্ত্রনায় না লিখা হয়েছে:  
                     “ মুঝ কো ভি পাড়হ, কিতাব হুঁ
                       মাজমুনে খাস হুঁ
                      মানা তেরে নিসাব মে সামিল নাহি হুঁ মাই...”

     আস্ স্বলাতু  ওয়াস সালামু আলাইকা ইয়া রসুলাল্লাহ !